৪৬৫ কর্মী নিয়োগ দেবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

Image result for স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

জনবল নিয়োগ দেবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। বিভিন্ন পদে কর্মী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। আবেদন করতে হবে অনলাইনে।

স্বাস্থ্য সহকারী৩৬৯ জন

পরিসংখ্যানবিদ১৮ জন

সাঁটমুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর২ জন

কোল্ড চেইন টেকনিশিয়ান২ জন

স্টোরকিপার২০ জন

অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক৩৭ জন

ডার্করুম সহকারী১ জন

ওয়ার্ড মাস্টার২ জন

ড্রাইভার৮ জন

ল্যাবরেটরি অ্যাটেনডেন্ট৬ জন

আবেদনের যোগ্যতা

পরিসংখ্যানবিদ পদে আবেদনের যোগ্যতা-পরিসংখ্যান, গণিত বা অর্থনীতি বিষয়ে স্নাতক। থাকতে হবে কম্পিউটার চালনায় দক্ষতা। এইচএসসি হলেই আবেদন করা যাবে সাঁটমুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে। কম্পিউটারে দক্ষতার ক্ষেত্রে ওয়ার্ড প্রসেসিং, ডাটা এন্ট্রি ও টাইপিংয়ে বাংলায় প্রতি মিনিটে ২৫ ও ইংরেজিতে ৩০ শব্দের গতি থাকতে হবে। কোল্ড চেইন টেকনিশিয়ান পদে রেফ্রিজারেশন বা এয়ারকন্ডিশনিং ট্রেডে এইচএসসি (ভোকেশনাল) পাস হতে হবে। স্টোরকিপার পদে এইচএসসি পাস হলেই আবেদন করা যাবে। অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক পদে এইচএসসি পাস হতে হবে। থাকতে হবে কম্পিউটারে ওয়ার্ড প্রসেসিং, ডাটা এন্ট্রি ও টাইপিংয়ে বাংলায় প্রতি মিনিটে ২০ ও ইংরেজিতে ২০ শব্দের গতি। স্বাস্থ্য সহকারী পদে আবেদনের যোগ্যতা এইচএসসি। ডার্করুম সহকারী ও ওয়ার্ড মাস্টার পদেও চাওয়া হয়েছে একই শিক্ষাগত যোগ্যতা। জেএসসি পাস হলেই আবেদন করা যাবে ড্রাইভার পদে। তবে থাকতে হবে হালকা বা ভারী ড্রাইভিং লাইসেন্সসহ দুই বছরের অভিজ্ঞতা। এসএসসি পাস হলেই আবেদন করা যাবে ল্যাবরেটরি অ্যাটেনডেন্ট পদে।

১ মে ২০১৮ তারিখে সাধারণ প্রার্থীর বয়স সর্বনিম্ন ১৮ ও সর্বোচ্চ ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে মুক্তিযোদ্ধা কোটার প্রার্থীদের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩২ বছর। কোন পদের জন্য কোন জেলার প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন, তা নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ রয়েছে। জেলা কোটা অনুসারে জেলার স্থায়ী বাসিন্দারা আবেদন করতে পারবেন। নিয়োগ কর্তৃপক্ষ জানায়, সব শর্ত পূরণ করা হলে আবেদনকারীকে প্রাথমিকভাবে যোগ্য হিসেবে বিবেচনা করা হবে। আবেদনে কোনো রকমের ত্রুটি থাকলে তা বাতিল হবে।

বেতন ভাতা

পরিসংখ্যানবিদ ও সাঁটমুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে ১০২০০-২৪৬৮০ টাকা, কোল্ড চেইন টেকনিশিয়ান পদে ৯৭০০-২৩৪৯০ ও স্টোরকিপার, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক, স্বাস্থ্য সহকারী, ডার্করুম সহকারী, ওয়ার্ড মাস্টার, ড্রাইভার পদে ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা স্কেলে বেতন পাওয়া যাবে। ল্যাবরেটরি অ্যাটেনডেন্ট পদের বেতনক্রম হলো ৮৫০০-২০৫৭০ টাকা।

আবেদনের শেষ তারিখ

৪ অগাস্ট বিকেল ৪টা

আবেদন প্রক্রিয়া

আবেদন করতে হবে অনলাইনে। http://www.dghsr.teletalk.com.bd ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনলাইনে আবেদনপত্র পাঠাতে হবে। অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ ও পরীক্ষার ফি জমা দেওয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে ১৪ জুন থেকে। আবেদন জমা দেওয়ার শেষ সময় ৪ জুলাই বিকেল ৪টা। অনলাইনে আবেদন জমা দেওয়ার সময় থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে পরীক্ষার ফি জমা দিতে হবে। আবেদনপত্রের যথাস্থানে ৩০০ বাই ৩০০ পিক্সেলের ছবি এবং ৩০০ বাই ৮০ পিক্সেলের স্বাক্ষর স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে। অনলাইনে জমা দেওয়া আবেদনের একটি কপি প্রিন্ট ও ডাউনলোড করে সংরক্ষণ করে করতে হবে। আবেদন সাবমিট করার পর ইউজার আইডি ব্যবহার করে টেলিটক প্রিপেইড মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে ল্যাবরেটরি অ্যাটেনডেন্ট পদের জন্য মোট ৫৬ টাকা এবং অন্য সব পদের জন্য ১১২ টাকা আবেদন ফি পরিশোধ করতে হবে।

যা যা লাগবে

ওয়েবসাইটে(http://www.dghsr.teletalk.com.bd অথবা http://www.dghs.gov.bd) জানা যাবে প্রবেশপত্র প্রাপ্তির দরকারি সব তথ্য। এ ছাড়া প্রার্থীর দেওয়া মোবাইল নম্বরে এসএমএসেও জানানো হবে। এসএমএসে প্রেরিত ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে পরবর্তী সময়ে রোল নম্বর, পদের নাম, ছবি, পরীক্ষার তারিখ, সময় ও পরীক্ষা কেন্দ্রের তথ্যসহ প্রবেশপত্র ডাউনলোড দিয়ে রঙিন প্রিন্ট করে নেওয়া যাবে। প্রবেশপত্রটি লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় সঙ্গে রাখতে হবে। সব পদের লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষায় বসার আগে জমা দিতে হবে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র। সব শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্রের কপি, নাগরিকত্ব সনদ, চারিত্রিক সনদ, মুক্তিযোদ্ধা কোটার ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা সনদ, প্রতিবন্ধী কোটার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধী সনদ প্রথম শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা কর্তৃক সত্যায়িত করে জমা দিতে হবে। মৌখিক পরীক্ষার দিন সব সনদের মূল কপি সঙ্গে রাখতে হবে।

পরীক্ষা পদ্ধতি

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রশাসন বিভাগ সূত্রে ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নিয়োগবিধি অনুসারে জানা যায়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির নিয়োগ পরীক্ষায় মোট ১০০ নম্বরের পরীক্ষা নেওয়া হয়। এর মধ্যে ৮০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা এবং ২০ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হতে পারে। এমসিকিউ পদ্ধতিতে লিখিত পরীক্ষা হয়ে থাকে। পদ অনুসারে করা হয় প্রশ্নপত্র। লিখিত পরীক্ষায় সাধারণ জ্ঞান, বাংলা, ইংরেজি ও গণিত বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়। প্রতিটি বিষয়ে বরাদ্দ থাকে ২০ নম্বর। প্রতিটি প্রশ্নের মান থাকে ১ নম্বর। টেকনিক্যাল পদের জন্য বিষয়সংশ্লিষ্ট প্রশ্ন থাকে। কম্পিউটার অপারেটর পদের লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের জন্য বসতে হবে টাইপিং টেস্ট বা ব্যবহারিক পরীক্ষায়। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের ডাকা হবে মৌখিক পরীক্ষার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *