কীভাবে একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্ট হিসেবে ক্যারিয়ার গড়বেন

আপনি কি বিজনেস ম্যানেজমেন্ট বা কোম্পানি সেক্রেটারি হিসেবে ক্যারিয়ার গড়ার কথা ভাবছেন? কিন্তু চাইছেন অন্যরকম কিছু করতে? যদি আপনি ব্যবসায় পড়াশোনা করে থাকেন, তাহলে একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্ট হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন। চলুন দেখে আসি, কীভাবে একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্ট হিসেবে ক্যারিয়ার গড়া সম্ভব।

Source: globalnegotiator.com

একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্ট কী কী কাজ করে থাকেন?

একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্ট মূলত যেকোনো কোম্পানি ও ব্যবসায়ের ইনকামিং ও আউটগোয়িং শিপমেন্টের দেখাশোনা, ম্যানেজমেন্ট এবং কোঅর্ডিনেশনের কাজ করে থাকেন। চলুন জেনে নেয়া যাক একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্টের কাজগুলো,

১. শপিং মেথড ও রুটিংয়ের দেখাশোনা ও নির্ধারণ করা।

২. বিভিন্ন হার্ডওয়্যার ও ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসের আপগ্রেড করা।

৩. শিপমেন্টে পৌঁছানোর স্থান নির্ধারণ করে কোনো সমস্যা ছাড়াই তা পৌঁছানো।

৪. শিপমেন্টের কম্প্যাটিবিলিটি টেস্ট করা।

৫. টেকনিক্যাল এক্সপ্লোয়েশনে দলগতভাবে কাজ করা।

৬. ক্লায়েন্টের সাথে পেমেন্ট অপশন ও ট্রান্সপোর্টেশন মেথড নিয়ে মিটিং করা।

৭. বিভিন্ন শিপিং ও ফ্রেইট কোম্পানির লজিস্টিক ডিটেইলস ও ট্রান্সপোর্টেশন কোঅর্ডিনেট করা।

৮. শিপমেন্টের খরচ, পোস্টাল রেট ও অন্যান্য চার্জ নিয়ে ডিটারমাইন, নেগোশিয়েট এবং ফলাফল তৈরি করা।

৯. ন্যাচারাল সিস্টেম, ওয়াইন্ড ফ্লো, ফ্রেইট ইঞ্জিন পাওয়ার এবং মূল ইলেক্ট্রিক্যাল সিস্টেমের মনিটরিং করা।

১০. ডেলিভারি টাইম, রুট স্ট্যাটাস এবং কার্গো শিপমেন্ট সম্পর্কে ক্লায়েন্টকে জানানো।

১১. বিভিন্ন ইনকামিং ও আউটগোয়িং শিপমেন্টের সিকিউরিটি প্রদান করা।

১২. বিভিন্ন শিপিং ডকুমেন্ট সংগ্রহ করা ও জায়গামতো সেগুলো পৌঁছে দেয়া।

১৩. বিভিন্ন শিপিং রেকর্ডের ডিটেইলস তৈরি করা।

১৪. প্রয়োজন পড়লে হারানো শিপমেন্ট নিয়ে রিসার্চ করা।

Source: freightmoversschool.co

একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্টের ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে?

একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্ট হিসেবে ক্যারিয়ার গড়ার পূর্বে আপনি, ফ্রেইট এন্ড কার্গো ইন্সপেক্টর, রেইল ট্রান্সপোর্টেশন ওয়ার্কার, হাইওয়ে মেইন্টেনেন্স ওয়ার্কার, শিপ লোডার, ট্র্যাফিক টেকনিশিয়ান, ডেলিভারি সার্ভিস ড্রাইভার, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার অথবা ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের চাকরি দ্বারা ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন। উপরোক্ত পদগুলো থেকে অভিজ্ঞতা অর্জন করে লোকোমোটিভ ইঞ্জিনিয়ার, ট্র্যান্সপোর্ট প্ল্যানার, ফ্রেইট অ্যাজেন্ট অথবা ট্র্যাফিক টেকনিশিয়ান হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন।

Source: 247truckdispatch.co

একজন সিনিয়র লেভেলের ফ্রেইট অ্যাজেন্ট হওয়ার পূর্বে আপনার অভিজ্ঞতার ঝুলিতে, মবিলিটি হার্ডওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং, সিস্টেমস অ্যাপ্লিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকানিক্যাল আর্কিটেকচার, অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিং, লোকোমোটিভ ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মতো কিছু পেশার দক্ষতা ও যোগ্যতা থাকলে, ফ্রেইট অ্যাজেন্ট হওয়াটা অনেক সহজ হয়ে যাবে আপনার জন্য।

Source: way-win-best.pw

একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চাইলে, আপনাকে যে সকল বিষয়ে পারদর্শী হতে হবে তা হচ্ছে,

১. টেকনিক্যাল ও নন-টেকনিক্যাল বিষয় সম্পর্কে অভিজ্ঞ হতে হবে।

২. এয়ার ফ্রেইট কন্ট্রোল সিস্টেমের উপর দক্ষ হতে হবে।

৩. বিভিন্ন ধরণের ফ্রেইট ফ্যাসিলিটির উপর দক্ষ হতে হবে।

৪. ফ্রেইট হার্ডওয়্যার ম্যানেজমেন্টের উপর দক্ষ হতে হবে।

৫. কম্পিউটার, অটোমোবাইল ও মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের উপর পারদর্শী হতে হবে।

৬. ক্রিয়েটিভ থিংকিং করার দক্ষতা থাকতে থাকবে।

৭. নিত্যনতুন ফ্রেইট টেকনোলজির সাথে আপডেটেড থাকতে হবে।

৮. অসাধারণ স্ট্র্যাটেজিক ও প্ল্যানিং করার দক্ষতা থাকতে হবে।

৯. হ্যান্ডলেস স্টেশন এ এম এস ও রেডিও কমিউনিকেশন ট্র্যাফিকের উপর দক্ষ হতে হবে।

১০. বিভিন্ন কার্গো ও ট্রান্সপোর্টেশন চেকিং করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

১১. কার্গো, ফ্রেইট ও শিপমেন্ট রিপোর্ট তৈরি করার দক্ষতা থাকতে হবে।

১২. টাস্ক ও অপারেশন ম্যানেজমেন্টের উপর দক্ষ হতে হবে।

Source: shiponsitesurfside.com

উপরের দক্ষতাগুলো ছাড়াও, একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্টের কিছু সাধারণ দক্ষতা থাকা উচিৎ। সেগুলো হচ্ছে,

১. জটিল বিষয় নিয়ে চিন্তাভাবনা করার দক্ষতা থাকতে হবে।

২. বিভিন্ন সমস্যায় দ্রুত সমাধান বের করার ক্ষমতা থাকতে হবে।

৩. যেকোনো বিষয়ে আস্থা রাখার মতো মন মানসিকতা থাকতে হবে।

৪. বিভিন্ন পারিপার্শ্বিক অবস্থায় খাপ খাওয়ানোর দক্ষতা থাকতে হবে।

৫. অসাধারণ যোগাযোগ দক্ষতা থাকতে হবে।

৬. যেকোনো বিষয়ে বিচক্ষণতার সাথে নেগোসিয়েশন করার দক্ষতা থাকতে হবে।

৭. অসাধারণ ইন্টারপার্সোনাল দক্ষতার অধিকারী হতে হবে।

Source: picswe.com

একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্টের কী ধরনের শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকতে হবে?

একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্ট হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করার পূর্বে হার্ডওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, ট্রান্সপোর্টেশন ম্যানেজমেন্ট, ন্যাচারাল সায়েন্স, লোকোমোটিভ ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং অথবা লজিস্টিক অর্গানাইজেশনের উপর কমপক্ষে দুই থেকে চার বছরের স্নাতক অথবা ডিপ্লোমা ডিগ্রি অর্জন করা যায়। তারপর, ফ্রেইট এন্ড কার্গো ইন্সপেকশন অথবা শিপ লোডারের কোর্স করলেই একজন প্রফেশনাল ফ্রেইট অ্যাজেন্ট হিসেবে ক্যারিয়ার গড়া যায়।

Source: politico.com

একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্টের কী ধরণের কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে?

একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্ট হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করার পূর্বে, আপনাকে ফ্রেইট এন্ড কার্গো ইন্সপেক্টর, রেইল ট্রান্সপোর্টেশন ওয়ার্কার, হাইওয়ে মেইন্টেনেন্স ওয়ার্কার, শিপ লোডার মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, এবং ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংসহ বিভিন্ন খাতের ভিন্ন ভিন্ন বিষয়ের উপর কমপক্ষে ২ থেকে ৪ বছরের অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে।

Source: politico.com

একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্টের বেতন কেমন হতে পারে?

যদি আপনি একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্ট হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চান, তাহলে আপনার বাৎসরিক বেতন এন্ট্রি লেভেল ও সিনিয়র লেভেলে ভিন্ন ভিন্ন হবে। এন্ট্রি লেভেলের একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্টের বাৎসরিক বেতন হয় সর্বোচ্চ ২০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত। সিনিয়র লেভেলের একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্টের বাৎসরিক বেতন হয় সর্বোচ্চ ৮০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত।

Source: mynextmove.org

এছাড়াও, কম্পিউটার ও আইটি খাতের অন্যান্য পদে বেতন স্কেলে তারতম্য দেখা যায়। যেমন: একজন কম্পিউটার প্রোগ্রামারের বাৎসরিক বেতন ২০ লক্ষ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৬০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত হয়। আবার, একজন সফটওয়্যার ডেভেলপারের বাৎসরিক বেতন ১৫ লক্ষ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২ কোটি টাকা পর্যন্ত হতে পারে। একইভাবে, একজন কন্সট্রাকটরের বাৎসরিক বেতন ১০ লক্ষ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৫০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত হতে পারে। আবার, একজন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের বাৎসরিক বেতন সর্বনিম্ন ৩০ লক্ষ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১ কোটি টাকা পর্যন্ত হতে পারে।

Source: arakafm.org

একজন ফ্রেইট অ্যাজেন্ট হিসেবে ক্যারিয়ার গড়াটা আপনার জন্য অনেক সহজ হয়ে যাবে, যদি আপনি মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ট্র্যান্সপোর্টেশন, ন্যাচারাল সায়েন্স অথবা বিজনেস ম্যানেজমেন্টের উপর বেশ কিছু সার্টিফিকেট অর্জন করতে পারেন।

Featured Image: danshipping.co.uk

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *