পড়াশোনা শেষ করা সদ্য স্নাতকদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হলো সঠিক চাকরি খুঁজে পাওয়া। যদিও অনেক নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান আগ্রহের সাথে সদ্য স্নাতকদের নিয়োগ দিয়ে থাকে। কেননা তারা বিশ্বাস করে এই তরুণ স্নাতকরা তাদের কোম্পানির সম্পাদক পরিণত হবে। এমনকি অনেক নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান ভালো ভালো কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে যৌথভাবে কাজ করে মেধাবী এবং সবচেয়ে বিচক্ষণ ছাত্রদের তাদের কোম্পানিতে নেওয়ার জন্য।

photo: sales placement

কোম্পানিগুলো এমন করে থাকে তাদের স্বার্থেই। তারা সেইসব কলেজকে নির্বাচন করে যেখান থেকে তাদের প্রত্যাশিত সবচেয়ে মেধাবী এবং বিচক্ষণ গ্র্যাজুয়েটরা বের হয়। যেমন ব্ল্যাকবেরি (রিম) বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশুনা শেষ হলেই সবচেয়ে মেধাবী স্নাতকদের কোম্পানিতে নেওয়ার জন্য কানাডার বিখ্যাত ওয়াটারলু বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে যৌথভাবে কাজ করে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন কিছু শিক্ষার্থীকে নির্বাচন করা হয় ব্ল্যাকবেরিতে যোগ দেওয়ার জন্য আর তারা শিক্ষাজীবন শেষ করেই সরাসরি চাকরিতে যোগ দিতে পারেন। এ ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ শিক্ষা ক্ষেত্রে অসাধারণ দক্ষতা সম্পন্ন হতে হয়।

কিন্তু অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে স্নাতক সম্পন্ন করার পরই তাদের কোম্পানিতে যোগ দেয়ার উপযুক্ত শিক্ষার্থীদের খুঁজে বের করতে কোম্পানিগুলোর নানান ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হয়। এই নিবন্ধে এমনই ৫টি বড় চ্যালেঞ্জ নিয়ে আলোচনা করা হলো, যা তরুণ স্নাতকদের নিয়োগ দিতে গিয়ে কোম্পানিগুলো মোকাবেলা করে থাকে।

প্রতিযোগিতা

সাধারণত কর্মক্ষেত্রে প্রবেশের সময় একটি পদের জন্য স্নাতকদের মধ্যে তীব্র প্রতিযোগিতা হয়ে থাকে। কিন্তু এক্ষেত্রে স্নাতকদের মধ্যে নয় বরং বিভিন্ন কোম্পানির মধ্যে তীব্র প্রতিযোগিতা হয় একজন স্নাতকে নেওয়ার জন্য। কেননা যেসব কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকদের নেওয়ার জন্য কোম্পানিগুলো মুখিয়ে থাকে, স্বভাবতই সেইসব কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকদের দিকে সব কোম্পানির মনোযোগ থাকে। অর্থাৎ বেশিরভাগ কোম্পানি সুনির্দিষ্ট কয়েকটি কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়কে টার্গেট করে। যে কারণে সেসব বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করে বের হওয়া স্নাতকদের নেওয়ার জন্য তীব্র প্রতিযোগিতায় নেমে পড়ে কোম্পানিগুলো।

photo: rounds consulting

এই প্রতিযোগিতার অংশ হিসেবে অনেকটা নিলামের মতো প্রত্যেকটি কোম্পানি নিজ নিজ অবস্থান থেকে তরুণ স্নাতকদের জন্য নানান রকম সুযোগ-সুবিধা ও উচ্চ বেতনের আশ্বাস দিয়ে থাকে। শুরুতেই স্নাতকদের এমন উচ্চ বেতন ও সুযোগ-সুবিধা দিয়ে চাকরিতে নিয়োগ করার কারণে কোম্পানিগুলো বড় ধরনের হুমকির মুখে পড়ে।

আবার ইচ্ছা করলেও কোম্পানিগুলো এ প্রতিযোগিতা থেকে পিছিয়ে থাকতে পারে না। কেননা তাদের কোম্পানীর জন্য অবশ্যই সবচেয়ে বিচক্ষণ এবং গুণী শিক্ষার্থীদের প্রয়োজন। আবার কোনো একটি কোম্পানি এবছর তরুণ স্নাতকদের নেওয়ার জন্য প্রতিযোগিতা করেনি তার অর্থ এই নয় যে, আগামী বছর তারা প্রতিযোগিতা করবে না। সুতরাং প্রতিটি কোম্পানিকে সবসময়ই তরুণ গ্রাজুয়েটদের নিয়োগ করার ব্যাপারে তটস্থ থাকতে হয়।

প্রতিভাবান কর্মীদের ধরে রাখা

যখন কোনো তরুণ স্নাতককে কোনো কোম্পানি প্রতিযোগিতার মাধ্যমে নিয়োগ দিয়ে থাকে তখন সেই তরুণ কর্মী এই কোম্পানিতে তার সাফল্যের ব্যাপারে শতভাগ নিশ্চিত থাকে। কেননা সে কোম্পানিতে আসেনি, কোম্পানি তাকে নিয়ে এসেছে। স্বভাবতই তার সাথে কোম্পানির দীর্ঘমেয়াদি চুক্তি হয়ে থাকে। এই দীর্ঘমেয়াদী চুক্তি কর্মক্ষেত্রে তার কাজের গতি কমিয়ে দেয়। আবার দিন শেষে তরুণ কর্মীরা জানে, তাকে উচ্চ বেতনে এখানে নিয়োগ দেয়া হয়েছে এবং ক্রমান্বয়ে তার বেতন কেবল বাড়বেই!

photo: slappmakers

সুতরাং তরুণ কর্মীরা এজাতীয় অনেক নিশ্চয়তা নিয়ে এই কোম্পানিতে কাজ করে যায় শুধুমাত্র অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য। তারপর খুব দ্রুতই তারা আরও উচ্চ পদে নিয়োগের জন্য প্রচেষ্টা চালায় এবং সুযোগ পেলেই তারা যেকোনো মুহূর্তে এই কোম্পানী ছেড়ে চলে যায়। সুতরাং কোম্পানির জন্য এক্ষেত্রে বড় চ্যালেঞ্জ এই বিচক্ষণ তরুণ স্নাতক কর্মীদের ধরে রাখা। স্বভাবতই তাদের ধরে রাখতে সুযোগ-সুবিধা এবং বেতন বাড়িয়ে দেওয়া হয়, দেওয়া হয় পদোন্নতি!

কোম্পানিগুলো মেধাবী কর্মীদের ধরে রাখতে যা করে থাকে

১. বছরব্যাপী ক্যারিয়ার উন্নয়নের নানা প্রতিশ্রুতি

২. কর্মীদের ব্যবহারের জন্য গাড়ি এবং অন্যান্য বিশেষ ভাতা

photo: pay scale

৩. স্বাভাবিকের চেয়ে উচ্চ বেতন

৪. স্নাতকোত্তর এবং এমবিএ করার জন্য আলাদা ভাতা

৫. বাসা ভাড়া এবং ভ্রমণের খরচ

কাজ আদায় করার চাপ

যেহেতু তরুণ স্নাতকদের শিক্ষা জীবন শেষ হওয়ার পরই চাকরিতে নিয়োগ দেয়া হয়। তাই তাদের নিয়ে কোম্পানির নানান রকম চাপের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। যেমন তরুণ কর্মীরা মাত্র তাদের দক্ষতা রপ্ত করতে শুরু করে, অথচ তার বিপরীতে কোম্পানি তাদের কাছ থেকে ভালো আউটপুট আশা করে। কোম্পানি আশা করে তারা কোম্পানির উৎপাদন ও লাভের পরিমাণ বাড়িয়ে তুলবে। এই পরিস্থিতি কোম্পানিকে একটা প্রবল চাপের মধ্যে ফেলে দেয়।

photo: oukas

কেননা কর্মীরা কোম্পানির প্রত্যাশা অনুযায়ী কাজ করতে সমর্থ হয় না। অপর দিকে কোম্পানি এই কর্মীদের সাথে চুক্তি অমান্য করে অতিরিক্ত চাপ দিতেও পারে না। আবার যেহেতু তারা নতুন, তাই তাদের বিশেষ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হয়। এই প্রশিক্ষণকালীন চুক্তি মেনে তাদের যথাযোগ্য সম্মানী এবং সুযোগ-সুবিধা দিতে হয়। আবার এই প্রশিক্ষণের পিছে কোম্পানির প্রচুর টাকা খরচ হয়।

এই সমস্যাটি সমাধানে যদিও উন্নত বিশ্বে অনেক কোম্পানি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সাথে কাজ করছে, যেন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালীন অবস্থাতেই শিক্ষার্থীদের যথাযথ প্রশিক্ষণ নিশ্চিত করা যায়। যেন কর্মীরা কাজে যোগ দেয়ার পরই কোম্পানির জন্য কাঙ্ক্ষিত সাফল্য বয়ে আনতে পারে।

বিশ্বস্ততা

অধিকাংশ কোম্পানি সেরা শিক্ষার্থীদের শুধুমাত্র ফলাফলের ভিত্তিতে দ্রুত নিয়োগ দেয়ার চেষ্টা করে এবং এতে তারা নিজেদের লাভবান মনে করে। হ্যাঁ, অবশ্যই এটা সত্য। তবে কিছু কোম্পানি বিশ্বস্ত কর্মী নিয়োগে ভুল করে। দ্রুত নিয়োগ দিতে গিয়ে কখনো কখনো কোম্পানি ভুল মানুষকে নিয়োগ দিয়ে ফেলে। অন্য কথায় বলা যায়, দ্রুত নিয়োগ-প্রক্রিয়া কর্মীদের চরিত্র বদলানোর প্রবণতাকে উস্কে দেয়।

photo: rd

যেমন আপনি যে সদ্য স্নাতককে নিয়োগ দিলেন তিনি যদি সৎ মানুষ না হন? আপনার কোম্পানীর গুরুত্বপূর্ণ কাজ করার জন্য তিনি যদি বিশ্বাসযোগ্য না হন? তিনি যদি এখনও নিয়ম আইনের প্রতি যথাযথভাবে শ্রদ্ধাশীল না হন? হঠাৎ নিয়োগ পাওয়া এবং খুব দ্রুতই আপনার প্রতিষ্ঠান ছেড়ে চলে যাও কর্মীর হাতে আপনার প্রতিষ্ঠানের গোপন নথি এবং তথ্যের নিরাপত্তা কি?

এই বিষয়গুলো নিয়ে অনেক কোম্পানি প্রবল চাপের মধ্যে থাকেন। কেননা একই সাথে তাদের সেরা কর্মী খুঁজে পেতে এবং প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে দ্রুত নিয়োগ দিতে হয়। আবার সেই দ্রুত নিয়োগ প্রক্রিয়ার মধ্যে থেকেও সত্যিকারের সৎ মানুষদের বেছে নিতে হয়।

শেষ কথা

প্রবল প্রতিযোগিতার মধ্যে থেকে তরুণ স্নাতকদের কোম্পানিতে নিয়োগ দেওয়া যেমন কঠিন কাজ, তেমনি তাদের থেকে যথাযথ কাজ আদায় করা আরো একটি কঠিন কাজ। আপনি আপনার কোম্পানিতে তরুণ উদ্যমী স্নাতকদের নিয়োগ দিয়েছেন। তারা যেমন আপনার কোম্পানীর জন্য সম্পদ হয়ে উঠতে পারে, আবার একই সাথে মনে রাখা দরকার তারা অনভিজ্ঞ! সুতরাং তাদের থেকে যথার্থ কাজ আদায় করাও কঠিন।

photo: contractors

কাজেই আপনি যখন সদ্য স্নাতকদের আপনার কোম্পানিতে নিয়োগ দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন, তখন অবশ্যই আপনাকে গবেষণা করতে হবে এবং নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অধিকতর স্বচ্ছ ও কৌশলী হতে হবে।